MobileGuide

কি দেখে মোবাইল কিনবেন? জেনে নিন মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা জরুরি।

মোবাইল কেনার আগে যা যা দেখা জরুরি

পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম একটা কঠিন কাজ হলো মোবাইল চয়েস করা। এইটার এইদিক ভালো তো অন্যটাতে আরেকটা জিনিস ভালো। তাই ঠিক বুঝে উঠতে পারি না যে কোন মোবাইল টি আমার জন্য ভালো হবে। তাই আজকে কথা বলতে এসেছি যে কি কি দেখে মোবাইল কিনবেন? এবং মোবাইল কেনার সময় কি কি দেখা জরুরি যেন আপনি আপনার জন্য বেস্ট ফোনটি চয়েস করতে পারেন।

একেক জন একেক কাজের জন্য ফোন কিনে থাকেন। কেও গেম খেলার জন্য, কেও বা ভালো ক্যামেরা বা ছবি তোলার জন্য, আবার অনেকেই নরমাল ইউজের জন্য ফোন কিনে থাকি। সো সবার কথা মাথায় রেখেই এই লিখাটি যেন আপনি নিজেই বুঝে যান যে কোন মোবাইল টি আপনার কেনা উচিত। 

কি দেখে মোবাইল কিনবেন ?

  • Performance 
  • Camera 
  • Ram Type
  • Storage Type
  • Battery 
  • Build Quality 
  • Operating System 

মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা জরুরি ?

এইটা অনেক কঠিন একটা কাজ, তবে আপনি যদি সব কিছু সম্পর্কে সঠিক ধারণা পেয়ে যান তাহলে অনেক সহজেই ভালো মানের ফোন চয়েস করতে পারবেন। তো সেক্ষেত্রে আমি আমার মতো করে সব কিছু আলোচনা করি এতে আপনারা অনেক ভালো করে বুঝে যাবেন যে কি দেখে মোবাইল কিনবেন? এবং মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা করা জরুরি। সেই অনুযায়ী আমি স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করব। তাহলে চলুন শুরু করি।

1.  Performance. 

কি দেখে মোবাইল কিনবেন (1)

ওয়েল, ফার্স্টেই আমি চেক করব পারফরম্যান্স। কারণ ফোনের পারফরম্যান্স ভালো না হলে ফোন যতই ভালো দামি হোক না কেন ফোন ব্যাবহার করে মজা পাবেন না। ফোনের পারফরম্যান্স মুলত কয়েকটা জিনিসের উপর ডিপেন্ড করে থাকে যেমনঃ Processor,  Ram Type, Storage Type, Battery ইত্যদি।

Processor. 

মোবাইল কেনার আগে অবশ্যই আপনাকে জেনে নিতে হবে যে এই ফোনে কোন প্রসেসর টি ব্যাবহার করা হয়েছে। বর্তমান বাজারব অনেক ধরনের প্রসেসর ওয়ালা ফোন রয়েছে। তবে মিড রেঞ্জের ফোন গুলো বা যাদের বাজেট ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার এর কাছাকাছি তারা অবশ্যই দেখবেন যেন ফোনে Qualcomm এর Snapdragon প্রসেসর থাকে। কারণ মিড রেঞ্জের ফোনের জন্য এই প্রসেসর টি বেস্ট। 

আর গেমিং ফোন বা যারা বেশী বেশী ফোন ব্যাবহার করেন তাদের জন্যেও এই প্রসেসর ওয়ালা ফোন ভালো হবে অন্যসব প্রসেসর থেকে।

Ram Type / Version. 

বর্তমানে অনেক ফোনেই দেখা যায় ৮ জিবি র‍্যাম, ১২ জিবি র‍্যাম ইত্যাদি থাকে। কিন্তু সেগুলার পারফরম্যান্স থেকে ২ জিবি ওয়ালা আইফোনের পারফরম্যান্স অনেক গুন ভালো হওয়ার কারণ হলো তাদের র‍্যাম ভার্সন। যেমন ধরুন LPDDR 2, LPDDR 3, LPDDR 4 এইরকম অনেক মডেলের র‍্যাম রয়েছে। আর প্রতিটা মডেলের র‍্যাম এর স্পীড আলাদা আলাদা হয়। আর এন্ড্রয়েডের দিক দিয়ে সব চেয়ে ভালো র‍্যাম এর মডেল হলো LPDDR 4. একটি ফোনের র‍্যাম যত বেশী স্পীড দিতে পারবে ফোনের পারফরম্যান্স ততই ভালো হবে। 

Storage Type / Version. 

আপনি কোন ধরনের স্টোরেজ এর ফোন কিনছেন সেটার উপরেও ডিপেন্ড করবে যে আপনার ফোনের স্পীড বা পারফরম্যান্স কেমন হবে। 

ধরুন বর্তমানে লেটেস্ট যে ভার্সন সেটি হলো UFS 3. আর এখন যদি আপনি গিয়ে UFS 2.1 বা UFS 1 এর ফোন গুলো কিনেন তাহলে অবশ্যই স্পীড এবং পারফরম্যান্স এর দিক দিয়ে একটু খারাপ হবে UFS 3 এর তুলনায়। তবে কিছুদিনের মধ্যেই UFS 3.1 ভার্সনটি আসতে চলেছে যা UFS 3 এর ছেয়েও আরো বেটার হবে। 

আপনার ফোনের স্পীড এবং পারফরম্যান্স কিন্তু আপনার স্টোরেজ এর উপরেও ডিপেন্ড করবে। অবশ্যই সেটি মাথায় রাখবেন। যদি পুরনো মডেলের স্টোরেজ টাইপের ফোন কিনেন তাহলে পারফরম্যান্স খারাপ হতে পারে। 

আরো পড়ুনঃ ২০২১ সালের সেরা গেমিং ফোন 

2. Mobile Camera. 

কি দেখে মোবাইল কিনবেন (2)

সেকেন্ড যে জিনিস টা দেখব সেটা হলো ফোনের ক্যামেরা। ফোনের ক্যামেরা খারাপ হলে আমরা অনেক সমস্যায় পড়ি যেমন কোন জিনিস ছবি তুললাম কিন্তু মন মত তুলতে পারছি না কারণ ফোনের ক্যামেরা ভালো না। আর আমাদের মধ্যে অনেক মানুষ আছেন যারা মেগাপিক্সেল এর উপর ডিপেন্ড করে ক্যামেরা কেমন হবে সেটা বিচার করেন। 

কারণ এখন মার্কেটে দেখা যায় ১০৪ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা পর্যন্ত আছে। আর অপরদিকে আইফোন মাত্র ৬ মেগাপিক্সেল এর ক্যামেরা ব্যাবহার করে এন্ড্রয়েড থেকে অনেক গুন ভালো ছবি তুলে। ফোনের ক্যামেরা তখনই ভালো হবে যখন এতে ভালো ক্যামেরা সেন্সর দেওয়া হয়। 

আপনি দেখবেন যে প্রায় ফোনেই কোন ক্যামেরা সেন্সর ব্যাবহার করা হয়েছে সেটা লিখা থাকে না। কারণ তারা ভালো মানের সেন্সর ব্যাবহার না করলে তারা কোথাওই ক্যামেরা সেন্সর এর ডিটেইলস দেয় নাই। ফোনের জন্য বেস্ট ক্যামেরা সেন্সর হলো Leica, Carl Zeiss ইত্যদি। এই ধরনের সেন্সর গুলি দিয়ে ছবি অনেক ভালো পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ মোবাইলের স্পীড বাড়ানোর উপায় 

3. Mobile Build Quality. 

ফোনের বিল্ড কোয়ালিটি টাও মেটার করে যখন আপনি ফোন কিনতে চান। যদি আপনি জানেন না যে কি দেখে মোবাইল কিনবেন তাহলে আমি যে স্টেও গুলো বলছি সেগুলো অবশ্যই ফলো করবেন। এতে আপনি জেনে যাবেন যে মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা জরুরি। 

মোবাইল বিল্ড কোয়ালিটি কোনটা আপনার জন্য ভালো হবে সেটার জন্য আপনাকে আগে দেখতে হবে যে আপনি কেমন ফোন ব্যাবহার করেন? আপনি কি বেশী বেশী ফোন ব্যাবহার করেন? আপনার হাত থেকে কি মাঝে মাঝেই ফোন পরে যায় নাকি আপনার ফোন সারাদিন পকেটেই থাকে।

আপনি যদি গ্লাস ব্যাকগ্রাউন্ড এর ফোন কিনেন যেগুলার ব্যাক প্যানেল এ গ্লাস দেওয়া সেগুলি কিনার সময় অবশ্যই মাথায় রাখবেন যে হাত থেকে ২-৩ বার পড়লেই কিন্তু পেছনের গ্লাস টি ভেঙ্গে যাবে। আর সেটা থেকে রক্ষা পেতে আবার ব্যাক কভার ব্যাবহার করতে হবে। গ্লাস ব্যাবহার এর ফলে এমনিতেই মোটা এবং ওজন বেশী হয়। আর সেখানে ব্যাক কভার ব্যাবহার করলে তো আরো বেশী মোটা এবং ওজন বেড়ে যাবে।

তাই অবশ্যই আপনাকে বিল্ড কোয়ালিটি টা দেখে এবং বুঝেশুনে চয়েস করতে হবে যে কোন টি কিনবেন।

আরো পড়ুনঃ কি দেখে মোবাইল কিনবেন? 

4. Mobile Battery. 

মোবাইল কেনার আগে অবশ্যই ব্যাটারি চেক করে নিতে হবে। কারণ ব্যাটারি ব্যাকাপ ভালো না হলে আপনাকে দিনের বেশিরভাগ সময়ই মোবাইল চার্জ দিতে হবে। আর ফাকে ফাকে একটু ব্যাবহার করতে পারবেন। যা কেউই চাইবে না জানি।

 

ফোন কেনার সময় অবশ্যই মাথায় রাখবেন যেন ফোনের ব্যাটারি ৫০০০ mAh এর উপরে হয়। নাহলে আপনি ভালো ব্যাটারি ব্যাকাপ পাবেন না আর দীর্ঘসময় টানা মোবাইল ব্যাবহার করতে পারবেন না, ব্যাটারি শেষ হয়ে যাবে। 

 

আর ব্যাটারি এর পাশাপাশি মোবাইলের সাথে যে চার্জার দেয় সেটাও চেক করে নিবেন। নরমালি যেন চার্জার টি 15W এর উপরের ফাস্ট চার্জার হয়। নাহলে আপনার ফোন চার্জ হতে অনেক বেশী সময় নিবে। তবে ১৮w এর উপরে চার্জার হলে বেস্ট হয় আর যদি ১৮W না হয় তাহলে অবশ্যই চেষ্টা করবেন যেন 15W এর উপরে হয়। নাহলে চার্জ নিয়ে অনেক বেশী ঝামেলায় পড়বেন।

5. Mobile Display.

ফোনের ডিসপ্লে টাও আপনাকে একটু ভালো ভাবে দেখে কিনতে হবে। কারণ ডিসপ্লে ঠিক ঠাক না হলে আপনি টিকটক, ফেসবুক, ইউটিউব ইত্যাদি ব্যাবহার এ সমস্যা হতে পারে বা গেমিং এর দিক দিয়েও অনেক সমস্যায় পড়তে পারেন।

আপনি যদি সাইজের কথা বলেন তাহলে বলব যদি আপনার হাত নরমাল বড় হয় তাহলে আপনি 6″ ডিসপ্লে নিতে পারেন আর যদি মনে করেন যে না আপনার হাত বড় আছে তাহলে আপনি 6.5″ বা এইরকম নিতে পারেন সমস্যা নেই, এক কথায় আপনি ফোন টি হাতে নিয়ে দেখবেন যে কমফোর্ট পাচ্ছেন কি না। কারণ হাতের তুলনায় ফোন বড় হয়ে গেলে সেটা নিয়ে চলা টাও অনেক টা মুশকিল হয়ে যায়।

 যারা যারা রাতে বা অন্ধকারে বেশী ফোন ব্যাবহার করেন তাদের জন্য Amoled Display টা বেস্ট হবে। 

পরিশেষেঃ

যারা যারা ভেবে পাচ্ছিলেন না যে কি দেখে মোবাইল কিনবেন বা মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা জরুরি তাদের কে একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত স্টেপ বাই স্টেপ গাইড করার চেষ্টা করছি যেন আপনারা সঠিক ফোন টি কিনতে পারেন। এবং কেও যেন আপনাকে উলটা পালটা বলে যেকোন ফোন ধরিয়ে দিতে না পারে। তো বন্ধু রা ধন্যবাদ এত সময় আমাদের সাথে থাকার জন্য আর আশা করছি আজকে আমাদের এই আর্টিকেল টি পড়ে আপনি একটু হলেও বুঝতে পারছেন যে মোবাইল কেনার আগে কি কি দেখা জরুরি এবং কি কি দেখে মোবাইল কিনবেন। আবারো ধন্যবাদ আপনাদের আর দেখা হবে ভবিষ্যতে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button